হরিণ ছানাকে ‌বন্ধু‌ বানিয়ে বাড়ি ফিরলো ৪ বছরের শিশু

অন্যান্য

অনলাইন ডেস্ক: মায়ের অনুমতি নিয়ে বাসার বাহিরে খেলতে গিয়েছিলেন চার বছরের শিশু ডমিনিক। কিছুক্ষণ পরেই বাড়িতে ফিরে আসে ডমিনিক। কিন্তু সাথে করে নিয়ে আসে তার নতুন এক বন্ধুকে। ছেলের বন্ধুকে দেখে অবাক হয়ে যান ডমিনিকের মা। কারণ ছেলের বন্ধু কোন সাধারণ বন্ধু না, বন্ধুটি হলো একটি হরিণের ছানা! বিষয়টি সাথে সাথে মোবাইলে ক্যামেরাবন্দি করেন ডমিনিকের মা স্টেফানি। পরে ছবিটি ফেসবুকে শেয়ার করলে তা ভাইরাল হয়ে যায়। এ নিয়ে ফলাও করে খবর প্রকাশ করেছে ফক্স, এবিসি নিউজের মতো বড় বড় গণমাধ্যমও।

ডমিনিকের মা স্টেফানি ব্রাউন জানান, সম্প্রতি সন্তানসহ ছুটি কাটাতে যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়ার ম্যাসানুটেন রিসোর্টে গিয়েছিলাম। আমার ছেলে ডমিনিক বাইরে খেলছিল। কিছুক্ষণ পরেই বাড়িতে ফিরে আসে ডমিনিক। ডমিনিকের পেছন দাঁড়িয়ে ছিল একটি শিশু হরিণ। হরিণটিকে দেখে কিছুক্ষণের জন্য স্তব্ধ হয়ে যাই। বুঝতে পারছিলাম কী করোব। পরে দ্রুত মোবাইল ফোন নিয়ে ‘দুই বন্ধুর’ কিছু ছবি তুলে রাখি। অদ্ভুত এক মায়াভরা চোখে আমার দিকে তাকিয়ে ছিল হরিণশাবকটি। হরিণশিশুটিকে একটুও ভীত মনে হয়নি। মনে হয়েছে, ডমিনিকের সাথে আসতে পেরে সে খুব খুশি।

শিশু ডমিনিকের মা বলেন, হরিণেরা সাধারণত খুবই ভীতু প্রকৃতির হয়, সহজে মানুষের কাছে আসে না বা সামান্য শব্দ শুনলেই পালিয়ে যায়। কিন্তু চার বছরের শিশুটির পাশে হরিণটি কোনো ধরনের অস্বস্তিবোধ করছিল বলে মনে হয়নি। বরং পুরনো বন্ধুর মতোই পাশাপাশি দাঁড়িয়েছিল তারা। ছোট্ট ডমিনিক হরিণটিকে ঘরের ভেতরে আনতে চেয়েছিল কিছু খেতে দেওয়ার জন্য। অবশ্য, হরিণশাবকটি যেন দলছুট হয়ে না যায়, এজন্য তাকে আবার জঙ্গলে ফিরিয়ে দিয়ে এসেছে সে।

ডমিনিকের মা স্টেফানি ব্রাউন আরও বলেন, ডমিনিকের ও তার নতুন বন্ধুর (হরিণের বাচ্চা) ছবিগুলো ফেসবুকে পোস্ট করতেই লাইক, কমেন্ট, শেয়ারের বন্যা বয়ে যায়। মাত্র তিনদিনেই স্টেফানির ওই পোস্টে রিঅ্যাক্ট পড়েছে ১৬ হাজার, কমেন্ট করেছেন চার হাজার মানুষ আর শেয়ার করা হয়েছে ২৯ হাজারেরও বেশি বার। বেশিরভাগ মানুষই এটিকে দুর্লভ, মহামূল্যবান আর নজরকাড়া দৃশ্য বলে মন্তব্য করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *